বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ভোলা জেলা শাখার উদ্যোগে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে

0
29
আমাদের ফেইসবুক পেইজ এ লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন।

বিশেষ প্রতিনিধি।
আজ ৩০ জুলাই ২০২৩ বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী ভোলা জেলা শাখার উদ্যোগে সদর রোডে বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর কেন্দ্র ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসাবে বাংলাদেশে কেয়ারটেকার সরকার প্রতিষ্ঠা করে আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ব্যাবস্থা করা,আমীরে জামায়াত ডাঃ শফিকুর রহমানসহ কেন্দ্রীয় নেত্রৃবৃন্দের মুক্তি,
আল্লামা দেলোয়ার হোসাইন সাঈদী, আলেম-ওলামাদের
বিরুদ্ধে করা মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে সকল আলেমদের মুক্তির ব্যাবস্থা করা ও দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রন করার দাবীতে এক বিশাল বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।বিক্ষোভ মিছিলে নেতৃত্ব দেন বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ভোলা জেলা সেক্রেটারী ও কেন্দ্রীয় মজলিশে শূরার সদস্য জনাব মোঃ হারুনুর রশিদ, ভোলা জেলা রাজনৈতিক সেক্রেটারি ও ভোলা জেলা কর্মপরিষদ সদস্য জনাব অধ্যাপক জিয়াউল মোর্শেদ চৌধুরী, জেলা কর্মপরিষদ সদস্য জনাব মোঃ বেলায়েত হোসেন,ভোলা সদর উপজেলা আমীর জেলা কর্মপরিষদ সদস্য জনাব মাওঃ কামাল হোসেন,সদর উপজেলা সেক্রেটারি ভোলা জেলা মজলিসে শূরার সদস্য জনাব মাওঃ আব্দুল গাফফার,সদর উপজেলা সহকারী সেক্রেটারী জনাব মাওঃ আব্দুল বারী, বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবিরের ভোলা শহর শাখার সভাপতি ছাত্রনেতা জনাব মোঃ নাহিদ হাসান ও শহর সেক্রেটারী জনাব মোঃ হাসনাইন। বিক্ষোভ মিছিলে বক্তব্য রাখেন জেলা সেক্রেটারী জনাব মাওঃ মোঃ হারুনুর রশীদ তিনি তার বক্তব্যে বলেন,আপনারা জানেন, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর ভারপ্রাপ্ত আমীরে জামায়াত জনাব অধ্যাপক মজিবুর রহমান ৩ দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছেন।গত ২৮ জুলাই/২৩ মহানগরী সমূহে ৩০ জুলাই জেলা সদরে উপরোক্ত দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল। ১ আগষ্ট ঢাকা মহানগরীতে সমাবেশ। উল্লেখিত কর্মসূচির অংশ হিসাবে আজ৩০ জুলাই /২৩ ভোলায় বিক্ষোভ মিছিল হচ্ছে। আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন কেয়ারটেকার সরকারের অধীনে হতে হবে। এবারের জাতীয় সংসদ নির্বাচন ২০১৪ ও ২০১৮ সালের মত বিনা ভোটে এম পি ও দিনের ভোট রাতে হবে না না না।এখন‌ও সময় আছে সময় থাকতে নির্বাচনকালীন কেয়ারটেকার সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে।আমীরে জামায়াত ডাঃ শফিকুর রহমান কে অন্যায় ভাবে গ্রেফতার করে রেখেছেন তার মুক্তি দিতে হবে। আল্লামা দেলোয়ার হোসাইন সাঈদী সাহেব সহ সকল আলেমদের মুক্তির ব্যাবস্থা করতে হবে। বর্তমান সরকারের মন্ত্রীরা সেন্ডিকেট করে দ্রব্য মূল্যের
দাম বাড়িয়ে দিয়েছে।দ্রব্যমূল্যের‌ উর্ধ্বগতি নিয়ন্ত্রন করতে হবে,।অন্যথায় যেকোন সময় জনবিস্ফোরন ঘটবে।সময় থাকতে বাজার নিয়ন্ত্রন করুন।উক্ত দাবীতে ভোলা বাসিকে ঐক্যবদ্ধ হয়ে আন্দোলনে শরীক হ‌ওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।

আমাদের ফেইসবুক পেইজ এ লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন।