ভোলায় শাশুড়ির জমি আত্মসাৎ ও শাশুড়িকে অমানবিক নির্যাতন

0
12
আমাদের ফেইসবুক পেইজ এ লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন।

মোহাম্মদ আলী ভোলা।
ভোলা পৌরসভা মুসলিম পাড়া ৮নং ওয়ার্ডে শাশুড়ির জমি আত্মসাৎ করে নিয়ে শাশুড়ির প্রতি অমানবিক নির্যাতনের অভিযোগ উঠেছে জামাই জরিরের প্রতি।

শাশুড়ি সাহিদা বেগম বলেন আমার স্বামী দীর্ঘ ১৪ বছর পূর্বে মৃত্যুবরণ করলে আমি স্বামীর খরিদা সম্পত্তির ওয়ারিশ সূত্রে মালিক হইয়া আমার মেয়ে ও মেয়ের জামাই আবু তাহের বাবুলকে নিয়া এই জমিতে একসাথে বসবাস করে আসছি। অন্যদিকে আমার আরেকটি জামাই জহির আমার সম্পত্তির লোভে পড়ে আমার অনিচ্ছা সত্ত্বেও আমার মেয়ে জোসনা কে বিয়ে করে ছলে, বলে, কৌশলে আমার সাথে মিশে কিছুদিন আমার সাথে থেকে আমার অসুস্থ অবস্থায় আমাকে ঘুরতে নিয়ে আমার সম্পত্তি আত্মসাৎ করে। যখন আমি সুস্থ হয়ে শুনতে পারি আমার সম্পত্তি জহির লিখিয়ে নিয়েছে। আমার সম্পত্তির বিষয়ে আমি জহিরকে জিজ্ঞেস করতে গেলে জহির আমার প্রতি অমানবিক নির্যাতন শুরু করে।

আমার নির্যাতন সংবাদ শুনে ৩০/০৫/২০২২ বিকাল আনুমানিক ৪.৩০ মিনিটে আমার মেয়ের জামাই আবু তাহের বাবুল ও ছোট মেয়ে খাদিজা আক্তার (লিনা) এসে বিষয়টি জানতে গেলে জহির তাদেরকে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে জহির এর ঘরে থাকা দা, রড দিয়ে আমার মেয়ে এবং মেয়ের জামাইকে মেরে রক্তাক্ত জখম করে।

আমি আবু তাহের আমার শাশুড়ির প্রতি শালির জামাই জহির নির্যাতনের সংবাদ শুনে বিষয়টি জহিরকে জিজ্ঞাসা করতে গেলে জহির আমার উপরে উত্তেজিত হয়ে অকথ্য ভাষায় গালমন্দ করে একপর্যায়ে দা দিয়ে আমাকে কোপ মারে এতে আমি রক্তাক্ত জখম হলে আমাকে এনে ভোলা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

খাদিজা আক্তার(লিনা) বলেন ওই সময় আমাকে মেরে ফুলা জখম করা হয়েছে আমার গলায় থাকা আট আনা ওজনের স্বর্ণের চেইন ছিনিয়ে নেয়া হয়েছে।

সাহিদা বেগম থানায় এসে একটি অভিযোগ দায়ের করে প্রশাসনের সুদৃষ্টি ও সুবিচার কামনা করেন।

আমাদের ফেইসবুক পেইজ এ লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন।