ভোলার বাপ্তায় গনসংযোগে হামলা ও শ্লীলতাহানী! শহরজুরে মহিলাদের ঝাড়ু মিছিল! অবস্থান কর্মসূচি

0
33
আমাদের ফেইসবুক পেইজ এ লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন।

ভোলা প্রতিনিধি !
ভোলার পঞ্চম ধাপের ইউপি নির্বাচনে বাপ্তায় স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ কামাল হোসেন এর মহিলা সমর্থকদের গনসংযোগে ব্যবহ্নত অটো-বোরাক ভাংচুর করা হয়েছে। এসময় মহিলাদেরকে পিটিয়ে জখম ও শ্লীলতাহানী করা হয়েছে বলে নৌকা প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী ইয়ানুর রহমান বিপ্লব মোল্লার বিরুদ্ধে প্রায় ৫ ঘন্টা ধরে অবস্থান কর্মসূচি, বিক্ষোভ ও ঝাড়ু মিছিল করা হয়েছে। আজ ২৭ ডিসেম্বর দুপুরে শহরের নতুন বাজার এলাকায় এ কর্মসূচি করা হয়েছে। পুলিশ সুপার, ডিসি অফিস এবং নির্বাচন অফিসের সামনে অবস্থান কর্মসূচির পর মিছিলটি পুলিশ সুপারের কার্যালয়ের থেকে শুরু করে নতুন বাজার হয়ে শহর প্রদক্ষিন করে আবার সদর থানার সামনে এসে শেষ হয়। এসময় মিছিলটি নৌকা প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী ইয়ানুর রহমান বিপ্লব মোল্লার বিচার চেয়ে বিভিন্ন স্লোগান দেন। মিছিল ও অবস্থান কর্মসূচিতে এলাকার শতশত সমর্থক মহিলা উপস্থিত ছিলো।
অবস্থান কর্মসূচিতে সমর্থক মহিলা ভুক্তভোগীরা বলেন,
ইয়ানুর রহমান বিপ্লব মোল্লার নিজেই
এর পূর্বেও আরো দুই – তিন বার তাদের গনসংযোগে হামলা করেছে, গনসংযোগে ব্যাবহ্নিত অটো- বোরাক ভাংচুর করেছে, ৭-৮ জনকে পিটিয়ে জখম করেছে। আজ আবারো গনসংযোগ শেষে মসর্থক মহিলারা বাড়ি ফেরার পথে তাদের বাহন অটো -বোরাক আবহাওয়া অফিস সড়কের বটতলা (দক্ষিন বাপ্তা) এলাকায় পৌছলে নৌকা প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী ইয়ানুর রহমান বিপ্লব মোল্লা কিছু সন্ত্রাসী নিয়ে তাদের বোরাকে হামলা করে, এসময় অটো-বোরাকে থাকা সমর্থক মহিলাদেরকে পিটিয়ে জখম করে শ্লীলতাহানী করে।
আন্দোলন কর্মসূচিতে পুলিশ সুপারের প্রতিনিধি সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এনায়েত হোসেন তাদেরকে আইনি ব্যবস্থার আশ্বাস দিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।
স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী মোঃ কামাল হোসেন জানান, আসন্ন ইউপি নির্বাচনে তিনি যাহাতে অংশগ্রহন করতে না পারে সেজন্য মদনপুরের ঘটনায় যুবলীগ ইউনিয়ন নেতা টিটু হত্যা মামলায় তাকে আসামী করা হয়েছে। এরপর বিভিন্ন ভাবে হয়রানী করা হচ্ছে। তিনি নির্বাচনে অংশগ্রহন করার পর তার সমর্থকরা প্রচার প্রচারনার জন্য জন-সংযোগে গেলে নৌকা প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী ইয়ানুর রহমান বিপ্লব মোল্লা নিজেই সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে হামলা চালায়।
মোঃ কামাল হোসেন আরো বলেন, তিনি সুষ্ঠ নির্বাচন চায়। মামলা হামলা তিনি চান না। তাই তিনি প্রশাসনের কাছে সুষ্ঠ নির্বাচন দাবী করেন।
এব্যাপারে অভিযুক্ত নৌকা প্রতিকের চেয়ারম্যান প্রার্থী ইয়ানুর রহমান বিপ্লব মোল্লার সাথে মোবাইল ফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নাই।
এদিকে ভোলার বিভিন্ন উপজেলায় সম্পন্ন হওয়া ইউপি নির্বাচনে জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের ভূমিকা প্রসংশনী হওয়ায় জনমনে স্বস্তি ফিরে এসেছে।
অপরদিকে যেকোন মূল্যে নির্বাচন সুষ্ঠের ব্যাবস্থা করবেন বলে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছেন।

আমাদের ফেইসবুক পেইজ এ লাইক দিয়ে সঙ্গে থাকুন।